এলোভেরা এর উপকারিতা – রূপচর্চা ও সুস্বাস্থ্যের জন্য



প্রাচীনকাল থেকেই প্রাকৃতিক ভেষজ ঔষধ হিসেবে এলোভেরার ব্যবহার হয়ে আসছে। এলোভেরা উপকারি তা কারো অজানা নয়। একে ঘৃতকুমারীও বলা হয়ে থাকে।

দেখতে অনেকটা আনারস গাছের মতো। এর পাতাগুলি পুরু, দু’ধারে করাতের মতো কাঁটা। এবং ভেতরে পিচ্ছিল শাঁস থাকে।

এই রসালো উদ্ভিদের পাতায় রয়েছে ২০ রকমের খনিজ পদার্থ। মানবদেহের জন্য যে ২২টি এমিনো অ্যাসিড প্রয়োজন সেগুলো এতে বিদ্যমান। এছাড়াও ভিটামিন এ, সি, ই, বি-ওয়ান, টু, সিক্স রয়েছে। এজমা, ড্যান্ড্রাফ, সেরিয়াসিসের মতো রোগের জন্য স্কিন কেয়ার চিকিৎসায় এলোভেরা ব্যাবহার করা হয়ে থাকে।

বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে, এই উদ্ভিদটির অ্যান্টিবায়োটিকের প্রভাব রক্তে শর্করার মাত্রা হ্রাস করে। প্রাকৃতিক গুণসম্পন্ন ভেষজ উদ্ভিদ ঘৃতকুমারী বা এলোভেরার গুনের কোনো সীমা পরিসীমা নেই।

এলোভেরা কীভাবে কাজ করে?

কাঁচের বাটিতে এলোভেরা জেল

এলোভেরা ক্ষতিগ্রস্থ ত্বকের জন্য আশ্চর্যরকম কাজ করে। নিয়মিত এটি ব্যবহার করলে ত্বক নরম, মসৃণ এবং উজ্জ্বল হয়।

এতে রয়েছে হাইড্রেটিং বৈশিষ্ট্য যা ত্বককে কোমল এবং দাগমুক্ত করে আরও উজ্জ্বল করে তোলে। এতে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকার কারণে বিউটি প্রোডাক্ট হিসাবে তুমুল জনপ্রিয়ত। এছাড়াও এতে রয়েছেঃ

  • ল্যাকটিন (Lactine)
  • মেনাস (Menus) এবং
  • পলিস্যাকারাইড (Polysaccharide)।

এই উপাদানগুলি নানাভাবে ত্বকের উপকার করে থাকে। এছাড়াও এটির অনেক ঔষধি গুণাগুণ রয়েছে। অনেক ধরনের রোগের নিরাময় করে এই অ্যালোভেরা।

এলোভেরার উপকারিতা

ক) ত্বকের যত্নে-

বহু বছর ধরে ত্বকের যত্নে এলোভেরা জেল ব্যবহৃত হয়ে আসছে।এলোভেরা শুষ্ক ত্বককে সজীব করে। ত্বকে চুলকানি, রোদে পোড়া দাগ দূর করতে এলোভেরার তুলনা হয় না। যেকোনো প্যাক অথবা সরাসরি এই জেল লাগালে ত্বক উজ্জ্বল ও মসৃণ থাকে এবং বয়সের ছাপ মুছে যায়। এলোভেরার ভিতরের জেল বের করে মুখের ত্বকে লাগালে ত্বক মসৃণ, উজ্জ্বল আর নরম হবে। আরও পড়তে পারেন- মেয়েরা ত্বকের যত্ন নেবেন যেভাবে

উপকরণঃ

  • ১ চামচ এলোভেরা জেল
  • ১/২ চামচ অলিভ অয়েল
  • ১ চামচ ওটমিলের গুড়া

১ চামচ জেল  ব্লেন্ড করে নিন। এরপর এক চামচ ওটমিলের গুড়া আর ১/২ চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে মাস্কটি মুখে আর গলায় লাগিয়ে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলুন । সপ্তাহে ১ বার এটি ব্যবহার করুন।

খ) চুলের যত্নে-

ত্বকের পাশাপাশি চুলের জন্য এলোভেরা অনেক দরকারি। এলোভেরার ব্যবহারে মাথার ত্বকের পি এইচ ঠিক থাকে আর খুশকিও দূর হয়। ২:১ অনুপাতে জেল আর ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগিয়ে সারা রাত রেখে সকালে শ্যাম্পু  করতে হবে। চুল খুশকি মুক্ত থাকবে। আরও পড়তে পারেন – চুল পড়া রোধে ৫ টি সহজ ঘরোয়া সমাধান

এছাড়াও চুলের শুষ্ক ভাব এবং ত্বকে চুলকানি দূর করার জন্য এলোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারবেন। এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান চুল পড়া ও খুশকির সমস্যা দূর করতে সাহায্য করবে। তাই এলোভেরা রসের সঙ্গে আমলকীর রস মিশিয়ে চুলে লাগালে এতে চুলের উজ্জ্বলতাও বেড়ে যাবে।

গ) মুখের ব্রণ দূরীকরণে-

এলোভেরার প্রাকৃতিক অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ব্রণ সারাতে, আর নুতন কোষ জন্মাতে কার্যকর।

  • এলোভেরার জেল আইস কিউব ট্রেতে করে আইস কিউব তৈরি করতে হবে।
  • এই কিউব দিনে দু তিনবার আপনার ব্রণে ঘষলে সমস্যা কমে যাবে।

ঘ) ঠোটের যত্নে-

ঠোঁট এর রঙ উজ্জ্বল রাখতে ঠোঁট নরম আর মসৃণ করতে এলোভেরা ব্যবহার করা যায়। নিয়মিত এলোভেরা জেল ঠোঁটে লাগলেই ঠোঁট উজ্জ্বল হবে।

  • এক টেবিল চামচ  চালের গুঁড়া আর অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন।
  • আস্তে আস্তে এই মিশ্রণ ঠোঁটে লাগিয়ে ৫ মিনিট অপেক্ষা করুন।
  • ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

দেখুন ঠোঁট কত উজ্জ্বল, মসৃণ এবং কোমল হয়ে ওঠে

ঙ) হজম প্রক্রিয়া-

হজম শক্তি বৃদ্ধিতে এলোভেরার তুলনা হয় না। এর অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান পাকস্থলি ঠাণ্ডা রাখে। এবং গ্যাসের সমস্যা দূর করে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এক গ্লাস পানি বা গুড়ের শরবতের সাথে এলোভেরা জেল মিশিয়ে খলে উপকার পাওয়া যায়।

চ) ডায়াবেটিস-

যারা ডায়াবেটিসের সমস্যায় ভুগছেন তারা নিয়মিত এলোভেরা রস খেলে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ কমিয়ে আনতে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন।

ছ) হার্ট ও দাঁতের যত্নে-

  • এলোভেরার রস কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রাখে। এটি দূষিত রক্ত দেহ থেকে বের করে দেয়।
  • হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।
  • এছাড়াও এর জেল দাঁত ও মাড়ির ব্যাথা, ক্ষত নিরাময়ে সহায়তা করে।

জ) ওজন কমাতে-

ওজন কমাতে এলোভেরার জুস অনেক কার্যকরী।

এর অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি উপাদান শরীরের জমে থাকা মেদ দূর করে। এবং কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ওজন কমাতে সাহায্য করে। 

এলোভেরা প্যাক কিভাবে বানানো যাবে?

মধু এবং এলোভেরা
মধু এবং এলোভেরা

এটি একটি যাদুকরী উপাদান যা আপনার ত্বককে ময়েশ্চারাইজ এবং উজ্জ্বল রাখতে সাহায্য করবে।

চলুন জেনে নেই ত্বকের উজ্জ্বলতায় অ্যালোভেরার প্যাকগুলো সম্পর্কেঃ

১) মধু এবং এলোভেরা

  • একটি পাত্রে ২ টেবিল চামচ জেল এবং এক চামচ মধু ভালো করে মেশান।
  • এবার তৈরি করা প্যাকটি আপনার পুরো মুখে ভালোভাবে লাগিয়ে আধা-ঘন্টা অপেক্ষা করুন। শুকিয়ে গেলে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিন।

জেল সরাসরি পাতা থেকে নিতে পারেন অথবা বাজারে আজকাল খুব ভালো মানের জেল কিনতে পাওয়া যায়। সেগুলোও ব্যবহার করতে পারেন।

২) আলমন্ড অয়েল এবং এলোভেরা

  • ২ টেবিল চামচ এলোভেরা জেলের সাথে কয়েক ফোঁটা মধু এবং কয়েক ফোঁটা আলমন্ড অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিন।
  • এবার এই মিশ্রণটি পুরো মুখে লাগিয়ে শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।
  • শুকিয়ে গেলে একটি ভেজা কাপড় দিয়ে মুছে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ৪ দিন ব্যবহার করবেন।

৩) এলোভেরা এবং গ্লিসারিন

এলোভেরা এবং গ্লিসারিন ত্বকের উজ্জ্বলতায় খুবই কার্যকর। গ্লিসারিন ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে এবং ত্বকের মৃত কোষ ধবংশ করে।

  • ২ চামচ জেলের সাথে কয়েক ফোঁটা গ্লিসারিন মিশিয়ে পুরো মুখে লাগিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলতে হবে। এই প্যাকটি নিয়মিত ব্যবহার করলে ত্বক আরও উজ্জ্বল হবে।

এলোভেরা ব্যবহারের অসুবিধাগুলি কী কী?

চিকিৎসকদের মতে, এলোভেরা জেল নিরাপদ যখন এটি ওষুধ বা জেল হিসেবে চামড়ায় প্রয়োগ করা হয়।

  • কিন্তু প্রাকৃতিক উপায়ে যখন এর ভেতরের রসালো পদার্থটি বের করা হয় তখন এর সঙ্গে ভুলবশত ‘অ্যালো লেটেক্স’বের হতে পারে। যা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এই ল্যাটেক্স এলোভেরার পাতার মধ্যেই থাকে। যার রঙ হলুদ।
  • গর্ভবতী এবং স্তন্যদানকারী মহিলাদের এলোভেরার রস ব্যবহার উচিত নয়। কারণ এটি তাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।
  • এলোভেরার জেল/রস বেশি পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়। যদিও এটি রক্ত বৃদ্ধি কারক, পাশাপাশি এটি কিডনির ক্ষতি করে থাকে।
  • লোভেরার জেল/রস অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে ডায়রিয়া হতে পারে।

পুষ্টিবিজ্ঞানী অমরদ্বীপকরের মতে-

”এলোভেরা, আমলকি এবং নীম শারীরিক জটিলতায় ঔষধ হিসেবে কাজ করে।

কিন্তু এগুলোর সঠিক প্রয়োগ না হলে বা অতিরিক্ত প্রয়োগের ক্ষেত্রে শরীরে আরো রোগ ব্যাধির বিস্তার ঘটতে পারে।”

এলোভেরা ব্যবহারের কারণে যদি কোনও স্বাস্থ্য ঝুকির কারন হয় তবে তাৎক্ষণিকভাবে এর ব্যবহার বন্ধ করে নিকটস্থ চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

পরিশেষে-

এছাড়াও বয়স বাড়ার সাথে আমাদের চামড়ায় ভাজ পড়ে যা আপনি সহজেই রুখতে পারেন অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান সমৃদ্ধ এলোভেরা ব্যবহার করে। অতি অল্প খরচে বাজারে এই এলোভেরা পাওয়া যায়। রূপচর্চা ও স্বাস্থ্যরক্ষার এই  ঘরোয়া উপাদানটি আপনাকে সতেজ, সুন্দর, ও উজ্জীবিত রাখবে।

তথ্যসূত্রঃ

আরও পড়তে পারেনঃ


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.